মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:০৪ অপরাহ্ন

ব্রেকিং
জনপ্রিয় অনলাইন সংবাদের পাতায় আপনাকে স্বাগতম
মনোনয়ন বঞ্চিত হলেন ক্রাইসিস সময়কার এমপি

মনোনয়ন বঞ্চিত হলেন ক্রাইসিস সময়কার এমপি

মনোনয়ন

Spread the love

এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে ঘটছে নানা অঘটন। অবিশ্বাস্য অনেক কিছুই ঘটে যাচ্ছে বড় দু’টি দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে। এর মধ্যে সবচে’ আলোচিত অঘটন হচ্ছে চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়টি। এ আসনে বিএনপির মনোনয়নপ্রাপ্তির বিষয়টি নিজ দলসহ জনগণের কাছে অবিশ্বাস্যই মনে হচ্ছে। আর সেটি লায়ন হারুনুর রশিদ মনোনয়ন প্রাপ্তদের মধ্যে না থাকা।

লায়ন হারুনুর রশিদ বর্তমানে ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় রাজস্ব ও ব্যাংকিং বিষয়ক সম্পাদক। এছাড়াও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে লায়ন হারুনকে বিএনপির ক্রাইসিস সময়কার এমপি বলা হয়। অর্থাৎ ওয়ান ইলেভেন ছিলো বিএনপির জন্যে মহাদুর্যোগকাল। এ দুর্যোগ সময়ের পর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুর জেলার পাঁচটি আসনের মধ্যে বিএনপি-জামাত জোট মাত্র একটি আসনে বিজয়ী হয়। আর সে আসনটিই হচ্ছে চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ)। আর জেলার একমাত্র বিজয়ী এ আসনের এমপি হচ্ছেন লায়ন হারুনুর রশিদ। শুধু তাই নয়, সে সময়ে সারাদেশে বিএনপির মাত্র দুই ডজন এমপির মধ্যে লায়ন হারুন একজন। সেজন্যে অন্য এমপিদের সাথে দলে তাঁর গুরুত্বটাই ছিলো অন্যরকম। কিন্তু এই ক্রাইসিস সময়কার এমপি এবং উপজেলা বিএনপির সভাপতি লায়ন হারুনুর রশিদ নিজ আসনেই দলের মনোনয়ন পাওয়া একাধিকজনের মধ্যে ঠাঁই পেলেন না, এটা রাজনৈতিক অঙ্গনে একটা বড় অঘটন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। সকলেরই ধারণা ছিলো- এমএ হান্নানের সাথে লায়ন হারুনকেও মনোনয়ন দেয়া হবে। কিন্তু দেখা গেলো যে, এমএ হান্নানের সাথে এমন আরো দু’জনকে মনোনয়ন দেয়া হলো যাদের ফরিদগঞ্জের রাজনীতিতে তেমন কোনো পরিচিতই নেই।

এদিকে লায়ন হারুন দলের মনোনয়ন না পাওয়ার পেছনে নানা মুখরোচক কথাবার্তা শোনা যাচ্ছে। তবে এটিকে সুষ্ঠু রাজনীতির জন্যে কেউ ভালোভাবে দেখছেন না।


Comments are closed.




© All rights reserved © 2018 sangbaderpata.Com
কারিগরি সহায়তায় ইঞ্জিনিয়ার বিডি