বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:২৯ অপরাহ্ন

ব্রেকিং
জনপ্রিয় অনলাইন সংবাদের পাতায় আপনাকে স্বাগতম
হঠাৎ করেই ১৪ বছরের কিশোরী তিন সন্তানের মা!

হঠাৎ করেই ১৪ বছরের কিশোরী তিন সন্তানের মা!

হঠাৎ করেই ১৪ বছরের কিশোরী তিন সন্তানের মা!

Spread the love

বগুড়া প্রতিনিধি: বিয়ে বাড়িতে ধুমধাম অনুষ্ঠান চলছে। অবশ্য কনে পঞ্চম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী। অপরদিকে বরের বয়স ২৪ বছর। জানা- শোনার মাধ্যমেই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন তিনি। কিন্তু, হঠাৎ করেই খবর আসল পুলিশ আসছে বাড়িতে। এমন খবরে কনে পক্ষের পরিবার মেয়ে বদলে বসিয়ে দিলেন অন্য একজন পাত্রীকে। যদিও এ বিষয়টা সবার অগোচরে ঘটেছে।

এরইমধ্যে বিয়ে বাড়িতে পুলিশ এসে পড়েছে। পুলিশ আসার পর যখন মেয়ের ঘোমটা খোলা হলো; তখন সবার চক্ষু চড়ক গাছ! একী, বিয়ের পিঁড়িতে বসে আছেন মেয়ের খালা! বগুড়ার ধুনট উপজেলার নাটাবাড়ি গ্রামে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে।

বর-কনের পরিবারকে এ ঘটনায় অবশ্য জরিমানা গুনতে হয়েছে। সাজা পেয়েছেন বর আমিনুল ইসলাম ও কনের খালা। পুলিশ পাত্রীর খালার নাম প্রকাশ করেনি।

এ ঘটনায় তাদের জেলা হাজতে নেয়া হয়। তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে সাত দিনের কারাদণ্ড। পরে অবশ্য তারা জরিমানা দিয়ে ছাড়া পান।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার রাতে ধুনট উপজেলার নাটাবাড়ি গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। ওই গ্রামের বাসিন্দা বাবলু মণ্ডল তার ১৪ বছরের মেয়েকে বিয়ে দিচ্ছিলেন পাশের গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে আমিনুল ইসলামের সঙ্গে। বিয়ের দিন তারিখ ঠিক হওয়ার পর গত সোমবার দুপুর থেকেই বিয়ের অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন দুই পরিবার।

দিনক্ষণ অনুযায়ী রাতে নিজ বাড়ি থেকে আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে করে কনের বাড়ি আসেন বর আমিনুল। বাল্য বিয়ের এ কথা জানতে পারে ধুনট পুলিশ। পরে তারা বিয়ে বন্ধে অভিযান চালালে বাবলু মণ্ডল মেয়েকে নিয়ে পালিয়ে যান। তবে পুলিশকে ধোকা দিতে তার পরিবার মেয়ের বদলে তার খালাকে বিয়ের ঘোমটা পরিয়ে বসিয়ে রাখেন তারা।

এ সময় পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা বোঝাতে থাকে কোনো বাল্য বিয়ে নয় বরং পূর্ণ বয়স্ক পাত্রীর সঙ্গেই বিয়ে দেয়া হচ্ছে। পরে পুলিশ মেয়ের ঘোমটা তুলতে বললে, তা সরিয়ে দেখা যায় কনের বদলে ৩ সন্তানের জননী তার খালাকে বসিয়ে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় ধোকাবাজির অভিযোগ এনে ওই নারীকে আর বাল্য বিয়ে করতে আসায় বর আমিনুল ইসলামকেও আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ।

আটকের পর রাতেই তাদের দু’জনকে উপজেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় তাদের দুজনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য্য করেন ধুনট উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জিনাত রেহানা। অনাদায়ে তাদের ৭ দিনের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন তিনি। পরে তারা জরিমানা দিয়ে ছাড়া পান।

এ বিষয়ে ধুনট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শফিউল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ধোকাবাজি করে বিয়ে দেয়ার চেষ্ট করলে বর ও কনের খালাকে আটক করা হয়। ধুনট উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জিনাত রেহানার আদালতে তাদের জরিমানা ধার্য করা হয়। তারা জরিমানা দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন বলে জানান তিনি।


Comments are closed.




© All rights reserved © 2018 sangbaderpata.Com
কারিগরি সহায়তায় ইঞ্জিনিয়ার বিডি